Welcome To Hazi Sayed Laboratory School

complete education enlightened life

মানুষ যদি পথ হয় তবে আমরা ছয়শ কোটি পথ। সে পথের সন্ধান করাই জীবনের লক্ষ্য। লক্ষ্য, বোধের চূড়ায় অবস্থান করে মানবিক মূল্য প্রতিষ্ঠা করা। এ জন্য দরকার জীবনের সঠিক পাঠ ও বিবেচনা। সঠিক পাঠে বিদ্যমান শিক্ষা ব্যবস্থা কতটুকই সাহায্য করতে পারে- এর উত্তর সকলেরই জানা। সীমাবদ্ধ ব্যবস্থার মধ্যেও আমরা আমাদের সন্তানকে সর্বোচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে চাই। চাই মানবিক মন্ত্রণায় সুন্দর ও সফল মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে। আমাদের এ আকাঙ্খা পূরণে উপযুক্ত শিক্ষা  প্রতিষ্ঠানের প্রাচুয  কোথায়? 

শুধু পাঠ্যবইয়ের নির্ধারিত এবং পরীক্ষায় ভালো ফলাফল মেধা বিকাশের একমাত্র মানদন্ড নয়। পরীক্ষার ফলাফলকে আমরা অবশ্যই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিবেচনা করে থাকি, তবে সুপ্ত ও সৃজনশীল প্রতিভার অন্যান্য দিক বাদ দিয়ে নয়।

“পরিপুর্ণ শিক্ষা-আলোকিত জীবন” এই মর্মবাণীকে বক্ষে ধারণ করে আমরা এমন একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বপ্ন দেখছি, যেখানে পঠন ও শিখনের মধ্যে দিয়ে একটি শিশু প্রকৃত অর্থেই একজন মানবিক, সৃজশীল ও দায়িত্ববান মানুষ হিসেবে তৈরি হয়ে পরিবার, সমাজ  ও দেশের জন্য অপার ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে এবং পরবর্তী প্রজন্মকে পথ দেখাবে।সে স্বপ্নের পথ বেয়ে এগিয়ে যাচ্ছে হাজী সাইদ ল্যাবরেটরি স্কুল। আমরা বিশ্বাস করি, এ প্রতিষ্ঠান আপনাদের স্বপ্ন পূরণের সোপান  হবে।   

Why Should you Choose Hazi Sayed Laboratory School?

অন্যান্য বিদ্যালয়ের চেয়ে যেদিক থেকে

হাজী সাইদ ল্যাবরেটরি স্কুল ব্যতিক্রম

 ১। নান্দনিক পরিবেশে নিজস্ব ক্যাম্পাস ও দক্ষ প্রশাসনিক ব্যবস্থা।

 ২ । অত্যাধুনিক তথ্য-প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা।

 ৩। ধর্মীয় ও নৈতিক মূল্যবোধের অনুশীলন এবং মুসলিম শিক্ষার্থীদের জন্য পবিত্র কোরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক।

 ৪। সুনির্দিষ্ট পাঠ পরিকল্পনার মাধ্যমে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক দ্বারা পাঠদান।

 ৫। বিদ্যালয়ে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর আনুষ্ঠানিকভাবে জন্মদিন উদযাপন।

 ৬। স্বদেশপ্রেমে উদ্ধুদ্ধ করার জন্য বিশেষ জাতীয় দিবস পালন ও তার তাৎপর্য  শিক্ষার্থীদের সামনে তুলে ধরা। 

 ৭। ছোট শিশুদের কাছে শ্রেণিকক্ষ আকর্ষণীয় ও আরামদায়ক করার জন্য বিশেষ বিশেষ ধরণের চেয়ার-টেবিলে পাঠদান।

 ৮। প্রজেক্টরের মাধ্যমে ক্লাসসহ বিভিন্ন  সময় শিক্ষামূলক প্রামাণ্যচিত্র, মুক্তিযুদ্ধ,  ও শিশু-কিশোর উপযোগী চলচ্চিত্র প্রদর্শন।

 ৯। শ্রেণিকক্ষে প্রচলিত ব্ল্যাকবোর্ডের পরিবর্তে হোয়াইট বোর্ড,মার্কারসহ সর্বক্ষেত্রে সর্বাধুনিক ও নান্দনিক আসবাবপত্র ও শিক্ষা উপকরণ ব্যবহার।

 ১০। পরিপূর্ণ শিক্ষা নিশ্চিতসহ শিক্ষার্থীর শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলা, সংগীত, চিত্রাঙ্কন, আবৃত্তি , নৃত্য, নাটকসহ শিল্প ও সাহিত্য চর্চা।     

১১। প্লে থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি পর্যন্ত মাতৃস্নেহে ভিন্ন পরিবেশে সার্বক্ষণিক তিনজন করে শিক্ষক দ্বারা টিচিং পদ্ধতিতে পাঠদান।

১২। আবহমান বাংলার ঐতিহ্যবাহী লোকাচার হাতেখড়ি, পহেলা বৈশাখসহ বাঙালির শিল্প-সংস্কৃতিকেন্দ্রিক নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন।

১৩। বিদ্যালয়টি সরাসরি ইংলিশ মিডিয়াম না হলেও ইংরেজিকে প্রাধান্য দিয়ে প্রতিটি শিক্ষার্থীকে স্পোকেনসহ  সার্বিকভাবে ইংরেজিতে দক্ষ করে তোলার ব্যবস্থা।

১৪। সি.সি ক্যামেরা দ্বারা ক্লাস  মনিটরিং ও সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ সেন্ট্রাল সাউন্ড সিস্টেমের ব্যবস্থা ।

১৫। কোন শিক্ষার্থী ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে তাৎক্ষণিকভাবে তার অভিভাবকের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে অনুপস্থিতির কারণ জানা হয়।

১৬। ল্যাব এইড ডায়াগনস্টিক লি: উত্তরা ও আবেদা মেমোরিয়াল হাসপাতাল লি: টঙ্গী এ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের স্বল্প ব্যয়ে ও বিশেষ ছাড়ে চিকিৎসাসেবা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুযোগ।

১৭। শিশুদের জন্য প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে খেলার স্থান বা স্পোর্টস জোন ও আধুনিক সায়েন্স ল্যাব। এছাড়া বিদ্যালয়ে রয়েছে কম্পিউটার ল্যাব এবং সমৃদ্ধ লাইব্রের।

১৮। বিদ্যালয়ে লেখাপড়ার পাশাপাশি শিশুদের কো-কারিকুলার এ্যকটিভিটিজ হিসেবে রয়েছে ৬টি ক্লাব। ( সায়েন্স, নাটক, বিতর্ক, আর্ট এন্ড  ক্রাফট, ল্যাংগুয়েজ, সংগীত) যেখানে ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কোর্স করানো হয়।

১৯। তৃতীয় তলায় স্থাপিত হচ্ছে একটি হল রূম ও একটি গ্যলারী কক্ষ যেখানে শিশুদের বিভিন্ন প্রদর্শনী ও অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে । 

২০। বিদ্যালয়ে প্রতি বছর শিশুদের অংগ্রহণে ক্রিড়া প্রতিযোগিতা, শিক্ষা সফর ও  বিভন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।